শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ০১:৫০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
উৎসবমূখর পরিবেশে তালায় রথযাত্রা অনুষ্ঠিত বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের নবনিযুক্ত সচিবের শ্রদ্ধা সাতক্ষীরায় মহাধুমধামে মধ্য দিয়ে সদর সার্বজনীন মন্দিরে শ্রী শ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা উৎসব জাতির পিতার সমাধিতে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অফিসার্স এসোসিয়েশনের নবনির্বাচিত নেতৃবৃন্দের শ্রদ্ধা আলহাজ্ব মো. নজরুল ইসলাম সাতক্ষীরা জেলা পরিষদের প্রশাসক হওয়ায় সংবর্ধনা প্রদান  বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে মিরপুর ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স ট্রেনিং কমপ্লেক্সের অধ্যক্ষের শ্রদ্ধা নিবেদন  বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এম.পি’র শ্রদ্ধা নিবেদন  জননেত্রী শেখ হাসিনা নির্দেশ এক ইঞ্চি জমিও যেন অনাবাদী না থাকে-বীজ ও সার বিতরণকালে এমপি রবি রোটারী ক্লাব অব সাতক্ষীরা’র উদ্যোগে রোটা বর্ষ-২০২২-২৩ উদযাপন উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা গাঁজাসহ তালায় এক ব্যবসায়ী আটক

উপকূলের স্বেচ্ছাসেবকদের আইকন উপকূলের বন্ধু গাজী ইমরান

✍️রবিউল ইসলাম📝 শ্যামনগর প্রতিবেদক✅
  • প্রকাশের সময় : বুধবার, ২২ জুন, ২০২২
  • ৭৬ বার পড়া হয়েছে

গাজী আল ইমরান। সাতক্ষীরার সুন্দরবন বেষ্টিত উপকূলীয় উপজেলা শ্যামনগরে জন্ম নেওয়া একজন মানবিক তরুণের নাম । শৈশব থেকেই স্বপ্ন ছিল মানুষের কল্যাণে কাজ করা। বিশেষ করে সমাজে অবহেলিত, সুবিধাবঞ্চিত এবং তরুণ-তরুণীদের দক্ষ যুব শক্তিতে রুপান্তর করার প্রয়াস ছিল। সেই ইচ্ছা থেকেই নিজ উদ্যোগে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী কাজ করার পাশাপাশি ২০০৮ সাল থেকে স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন হিতৈষী রক্তদান সংস্থা সহ বিভিন্ন সংগঠনের সাথে থেকে মানবতার কল্যাণে কাজ করে যাচ্ছেন। ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারীতে “এসো সকল প্রাণের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হই” এই স্লোগানে প্রতিষ্ঠা করেন উপকূলীয় শিক্ষা ও বৈচিত্র্য উন্নয়ন সংগঠন” – (সিডিও)। যার প্রতিষ্টাতা পরিচালক তিনি নিজে হলেও সংগঠনটি সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতেই পরিচালিত হয়। মুলত এই সিডিওর মাধ্যমেই তিনি উপকূলীয় এলাকায় মানবতার আলো জ্বেলেছেন এবং খ্যাতি পেয়েছেন উপকূলীয় অঞ্চলের হাজারও যুবকের আইকন এবং উপকূলের বন্ধু হিসেবে।

গাজী আল ইমরান খুলনা বিএল কলেজ থেকে বাংলা বিষয়ে স্নাতকোত্তর করেছেন এবং সাতক্ষীরা ‘ল’ কলেজ থেকে এলএলবি সম্পন্ন করেছেন। পেশাগত জীবনে জাতীয় পরিবেশ পদক প্রাপ্ত গবেষণা উন্নয়ন সংস্থা বারসিকের প্রোগ্রাম অফিসার হিসেবে কাজ করছেন।একই সাথে তিনি উপজেলা এনজিও সমন্বয় পরিষদ শ্যামনগরের সমন্বয়ক, উপজেলা ঠিকাদার কল্যান সমিতির সাংগঠনিক সম্পাদক এবং উপজেলা রিপোর্টার্স ক্লাব’র প্রতিষ্টাতা সভাপতি সহ বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাণ্ডের সাথে জড়িত। সংগঠনটি ২০১১ সালে প্রতিষ্ঠিত হলেও ২০১৭ সাল থেকে তার বিস্তার ঘটে। প্রতিষ্ঠার পর থেকে উপকূলীয় এলাকায় শিক্ষা ও বৈচিত্র্য সংরক্ষনে কাজ করায় উপজেলা প্রশাসন থেকে শ্রেষ্ঠ যুব সেচ্ছাসেবী সংগঠনের পুরুস্কার ও সম্মাননা স্মারক অর্জন করে নিয়েছে।

সমাজে অবহেলিত, অসহায় ও চিকিৎসা বঞ্চিত মানুষদের রক্ত সহায়তা দেওয়ার লক্ষে প্রতিষ্ঠা করেছেন সিডিও রক্ত সহায়তা কেন্দ্র। নারী জাগরণ ও নারীর ক্ষমতানের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠা করেছেন সিডিও নারী উদ্যোক্তা কেন্দ্র। যার মাধ্যমে গেল বছরে সমাজ সেবায় অবদান রাখায় পেয়েছে জয়িতা পুরষ্কার।

২০০৯ সালে ঘূর্ণিঝড় আইলা থেকে শুরু করে উপকূলীয় এলাকায় যতগুলো প্রাকৃতিক দুর্যোগ আঘাত হেনেছে, সব গুলো দুর্যোগে নির্ঘুম রাত কাটিয়ে উপজেলা প্রশাসনের সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে এলাকার স্বেচ্ছাসেবী যুবদের সাথে নিয়ে উপকূলবাসীর পাশে থেকে দুর্যোগ কালীন নির্ঘুম রাত কাটিয়েছেন তিনি। ঘূর্নিঝড় পরবর্তীতে উদ্ধার কার্যক্রম সহ ত্রাণ বিতরনে ঝাপিয়ে পড়েছেন তিনি সহ তার সংগঠনের সদস্যরা।

মহামারী করোনা কালীন সময়ে প্রথম থেকে উপজেলা প্রশাসনের সাথে সিডিও’র স্বেচ্ছাসেবকদের নিয়ে মাঠ পর্যায়ে মানুষকে সচেতন করা সহ কর্মহীন মানুষদের বাড়িতে বাড়িতে খাদ্য সহায়তা পৌছে দেওয়া অব্যাহত রেখেছে। করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া ব্যক্তিকে যখন তার পরিবার সহ আশেপাশের কেউ লাশের চেহারা পর্যন্ত শেষবারের মত দেখেনি, তখন সিডিওর স্বেচ্ছাসেবকেরা উপজেলা প্রশাসনের সহায়তা নিয়ে করোনাক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া সেই সব লাশের জানাযা পড়িয়ে দাফন পর্যন্ত করেছে।

শ্যামনগর উপজেলার মধ্যে ভবঘুরে বা পাগল ব্যক্তিদের খাদ্য সহায়তা দেওয়ার জন্য ‘মানবতার ঝুড়ি’ স্থাপন করেছেন সিডিওর প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক গাজী ইমরান। এছাড়াও ভবঘুরে ও পাগল ব্যক্তিরা মারা যাওয়ার পরে তাদের দাফন কাফনের ও ব্যবস্থা করছে সিডিও সংগঠনটি।

উপকূলীয় এলাকায় দরিদ্র ও অসহায় পরিবারের শিশুদের লেখাপড়ার সহায়তা হিসেবে “উপকূলীয় শিক্ষা ও বৈচিত্র্য উন্নয়ন সংগঠন (সিডিও) এর মাধ্যমে শিক্ষা উপকরণ সহ স্কুল ড্রেস বিতরন করা অব্যাহত রেখেছে।

সমাজের সুবিধাবঞ্চিত, অসহায় ও দুর্যোগ কবলিত মানুষদের কল্যানে এভাবে নিজেকে বিলিয়ে দেওয়ায় পেয়েছে “মানবতার ফেরিওয়ালা” খেতাব। উপকূলীয় এলাকার হাজারও যুবকের আইকন গাজী ইমরান তার অভিব্যক্তিতে বলেন, একজন অসুস্থ ব্যক্তিকে রক্ত উপহার দিয়ে সুস্থ হওয়ার পরে যখন আমার জন্য দোয়া করে তখন আমার অন্য রকম ভালো লাগে, আবেগ কাজ করে, চোখ দিয়ে পানিও পড়ে। এই অনুভূতি একেবারেই আলাদা। সেই মুহূর্তে পৃথিবীর সবচেয়ে সুখী মানুষ মনে হয় নিজেকে। নিজের যা কিছু অর্জন, তা তো এসকল অসহায় মানুষদের দোয়া আর ভালবাসারই প্রতিফলন। আমি নিজেকে তখন তাদের পরিবারের মধ্যে বিলিয়ে দেয়। সমাজের অবহেলিত সুবিধা বঞ্চিত সেই সকল ব্যক্তি, পিতামাতা সমতুল্য বৃদ্ধ – বৃদ্ধার দোয়ার ফলেই আমি আজকে গাজী ইমরান হতে পেরেছি। যতদিন এ দেহে থাকবে প্রাণ, ততদিন আমি ইমরান সকল অবহেলিত, সুবিধাবঞ্চিত ও অসহায় মানুষদের কল্যাণে নিবেদিত এক প্রাণ।

সমাজ সেবায় বিভিন্নভাবে অবদান রাখলেও তিনি ক্যামেরার পিছনে থেকেছেন সবসময়। বিভিন্ন কর্মসূচিতে নিজের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে না ছড়িয়ে সামনে এনেছেন সংগঠনের সদস্যদের।

শৈশব থেকেই স্বপ্ন দেখতেন মানুষদের জন্য কিছু না কিছু করার। সমাজের ধনী শ্রেনির মানুষেরা যদি গরীবদের কল্যানে এগিয়ে আসে তবে এদেশে এত অসহায়, সুবিধাবঞ্চিত মানুষ থাকত না। তাই সমাজের মানুষদের মধ্যে ধণী গরীবের বৈষম্য দূর করার চেষ্টা, তারুণ্যের ইচ্ছা, সম্ভাবনা, কাজের সুযোগ, যোগ্যতা, সংগঠন করার নেশা, নতুন কিছু করার ভাবনার স্বপ্ন পূরণের লক্ষ্যেই মূলত ২০১১ সালে নিজের জন্মস্থান উপকূলীয় জেলা সাতক্ষীরার শ্যামনগরে গাজী ইমরানের হাত ধরে যাত্রা শুরু করে ‘উপকূলীয় শিক্ষা ও বৈচিত্র্য উন্নয়ন সংগঠন (সিডিও)’। সংগঠনটি ইতিমধ্যে সমাজসেবা, যুব উন্নয়ন এবং সমবায় থেকে সরকারিভাবে নিবন্ধন প্রাপ্ত হয়েছে।

শুরু থেকেই তরুণ-তরুণীদের জন্য বিভিন্ন প্রশিক্ষণ, কর্মশালা ও ক্যাম্পেইনের আয়োজনের পাশাপাশি সরকারের বিভিন্ন প্রশিক্ষণে স্থানীয় যুবকদের সুযোগ সৃষ্টিতে কাজ করছে এই সংগঠন। যুব সমাজকে দক্ষ ও স্বাবলম্বী করে গড়ে তোলার জন্য আত্মকর্মসংস্থান মুলক সেলাই প্রশিক্ষণ, পাখি ও পশুপালন প্রশিক্ষণ, মিষ্টির বিভিন্ন প্যাকেট তৈরির প্রশিক্ষণ, নারীর ক্ষমতায়ন বিষয়ক কর্মশালা,

কম্পিউটার প্রশিক্ষণসহ নানারকম আত্মকর্মসংস্থানমুলক প্রশিক্ষণের আয়োজন করেন সংগঠনটি। এছাড়াও নারী নির্যাতন ও ধর্ষন প্রতিরোধে সচেতনতা মুলক ক্যাম্পেইন, উপকূলীয় নদীর বেড়িবাধ রক্ষার জন্য নানাবিধ কার্যক্রম করে থাকে ইমরানের সংগঠন।

বিশেষ করে জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকি হ্রাস,পরিবেশ সুরক্ষা এবং বিশেষ ভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের নিয়ে সংগঠনের কার্যক্রম চোখে পড়ার মতো। প্রতি মাসে শতাধিক মুমূর্ষু রোগীকে বিনামূল্যে রক্ত দিয়ে থাকেন সংগঠনটি।

বর্তমানে উপকূলীয় অঞ্চলের প্রায় সহস্রাধিক স্বেচ্ছাসেবী সহ দেশের এবং বিদেশের বিভিন্ন হিতৈষী ব্যক্তিদের নিয়ে কাজ করছে ‘সিডিও’ নামের সংগঠনটি।

এছাড়া বেসরকারী গবেষণা প্রতিষ্ঠান “বারসিক” গাজী আল ইমরানের সংগঠনকে আর্থিক ও অনার্থিক নাানভাবে সহযোগিতা দিয়ে থাকে।

গাজী ইমরান বলেন, সিডিও একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন। ২০১১ সালে প্রথমে আমি আমার নিজ উপজেলা শ্যামনগরে এর কার্যলয় শুরু করি। এতে স্থানীয় তরুণ-তরুণীদের কাছ থেকে বেশ সাড়া পেয়েছি। তারা যুক্ত হয়েছে আমাদের সঙ্গে। নানাভাবে সহযোগিতা করেছেন স্থানীয় কর্তৃপক্ষও। এখন নিজ উপজেলার বাইরেও আমাদের কার্যক্রম চলমান আছে।

সংগঠনের সদস্যদের নিয়ে তিনি বলেন, সংগঠনের সদস্যরা আমার প্রাণ।সদস্যদের ভালোবাসা আছে বলেই সমাজের মানুষ সংগঠনের মাধ্যমে উপকৃত হচ্ছে।সকল সদস্যরা সমাজের সংগঠনকে নিজের প্রাণ মনে করেন।তারা ভাবেন সংগঠনটি তাদের কাছে আতুর ঘর।

ভবিষ্যতে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনায় কাজ করার আকাঙ্খা ইমরানের। তিনি বলেন, আমার জন্ম, শৈশব, কৈশোর সবই বেড়ে উঠেছে এই দুর্যোগ উপকূলীয় অঞ্চলের মধ্যে। জন্মের পর থেকে দেখছি এই অঞ্চলের দুর্যোগ কবলিত মাদুষদের জীবন জীবিকা। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা ছাড়াও বিভিন্ন প্রান্তে মানুষ নানা দুর্যোগের সঙ্গে যুদ্ধ করে জীবন-যাপন করছেন। আমি তরুণ সমাজের মধ্যে এই বোধ সৃষ্টি করতে চাই যেন তারা নিজ নিজ জায়গা থেকে দক্ষতার উন্নয়ন ঘটাতে পারে এবং মানুষের কল্যাণে নিজেকে নিয়োজিত করার তাগিদ বোধ করে। এভাবে সচেতন ও দক্ষ তারুণ্য-ই একদিন বাংলাদেশকে বিশ্ব দরবারে নতুন করে পরিচয় করিয়ে দেবে,’ দৃঢ়কণ্ঠে বললেন গাজী ইমরান।

শীতের রাতে দুঃস্থদের মাঝে কম্বল বিতরণসহ বৈশ্বিক করোনা মহামারিতে গরিব, অসহায়, পঙ্গু ও অতিদরিদ্র জনগোষ্ঠীর বাড়ি বাড়ি ঘুরে তাদের সাহায্যের ব্যবস্থা করা। এছাড়া মেধাবী দুস্থ শিক্ষার্থী, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত গরিব জনগোষ্ঠীকে চিকিৎসাসেবা প্রদানের সাহায্য করে থাকে গাজী ইমরানের সংগঠনটি। তারই মানবিক কাজে সহায়তা পেয়েছেন মেধাবী দুস্থ শিক্ষার্থী, ঋণগ্রস্ত অসহায় ব্যক্তি, চিকিৎসাসেবা বঞ্চিত অসহায় রোগী, শীতার্ত দুঃস্থসহ অবহেলিত জনগোষ্ঠী।

সমাজ বিনির্মাণের প্রত্যয়ে এদেশে অসংখ্য তরুণ নিরবে নিভৃতে কাজ করে যাচ্ছেন। আত্মপ্রচার নয়, আত্মতৃপ্তিই যাঁদের মূল উদ্দেশ্য। মানবতার কল্যানে নিজেকে বিলিয়ে দেয়া তেমনই একজন সিডিও ইয়ুথ টিমের প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ও শ্যামনগর উপজেলা রিপোর্টার ক্লাবের সভাপতি গাজী আল ইমরান।

সংবাদ টি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

এ বিভাগের আরো সংবাদ

আজকের নামাজের সময়সুচী

  • ফজর
  • যোহর
  • আছর
  • মাগরিব
  • এশা
  • সূর্যোদয়
  • ৩:৫০ পূর্বাহ্ণ
  • ১২:০৬ অপরাহ্ণ
  • ১৬:৪২ অপরাহ্ণ
  • ১৮:৫৪ অপরাহ্ণ
  • ২০:২০ অপরাহ্ণ
  • ৫:১৪ পূর্বাহ্ণ
©2020 All rights reserved
Design by: SHAMIR IT
themesba-lates1749691102
error: Content is protected !!